শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৮:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
নকলায় বৈষম্যমূলক কোটা সংস্কার দাবিতে ও শিক্ষার্থীর ওপর বর্বর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নকলায় উন্নয়ন সহায়তা কর্মসূচির টিউবওয়েল বিতরণ মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী শ্লোগানের প্রতিবাদে নকলায় মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন এবার শেরপুরকে ঘিরে তৈরি হচ্ছে ইত্যাদি অনুষ্ঠান : সকল কাজ প্রায় শেষ বিভাগীয় কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় নকলায় “মাদককে না বলুন” কর্মসূচি বাস্তবায়নে শপথ গ্রহণ নকলায় জঙ্গিবাদ ও মাদকাসক্তি প্রতিরোধে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নকলায় শিশু ও নারী নির্যাতন বিরোধী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নকলায় যুবদের হুইসেলব্লোয়ার হিসেবে অন্তর্ভূক্তিকরণ সভা নকলার ইউএনও শুদ্ধাচার পুরস্কার পাওয়ায় যুবফোরাম কর্তৃক সম্মাননা স্মারক প্রদান

নিজের আনন্দ ভুলে জনগণের পাশে দাঁড়ানোই যার নেশা, সেহলো নকলার কনক

নকলা (শেরপুর) প্রতিনিধি:
  • প্রকাশের সময় | শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪
  • ৪২ বার পঠিত

যেকোন নির্বাচনে জয়লাভ করার পরে স্বাভাবিক কারনেই যেখানে আনন্দ, উল্লাস ও বিজয় মিছিলে থাকার কথা, সেখানে শেরপুরের নকলা উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পরের দিন থেকেই উপজেলার বিভিন্ন এলাকার দরিদ্র অসহায় কৃষকের ধান কাটতে তীব্র তাপদাহকে ওপেক্ষা করে মাঠে নেমে পরেছেন তরুণ সমাজসেবক সদ্যনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান আবু হামযা কনক। তার এ ত্যাগ বা উদারতা সবার নজর কেড়েছে। সাধারণ মানুষের মুখে মুখে যেন একটাই নাম কনক।

জানা গেছে, ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নকলা উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক আবু হামযা কনক, ভাইস চেয়ারম্যান পদে চশমা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করে ৩১ হাজার ১৯৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোশাররফ হোসেন সরকার বাবু পেয়েছেন ২৭ হাজার ১৪২ ভোট।

এই নির্বাচনে নকলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে এ.কে.এম মাহবুবুল আলম সোহাগ, ভাইস চেয়ারম্যান পদে আবু হামযা কনক ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে লাকী আক্তার বিজয়ী হয়েছেন। বিজয়ী সবাই নির্বাচনী এলাকা ঘুরে ঘুরে কর্মী-সমর্থকসহ ভোটারদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করছেন। শুকরিয়া আদায়ের পাশাপাশি জানাচ্ছেন কৃতজ্ঞতা। তবে ভোটারদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ, শুকরিয়া ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপনের কৌশলটি সকলকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। প্রসংশায় ভাসছেন সদ্যনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান আবু হামযা কনক। সে নির্বাচিত হওয়ার পরের দিন থেকেই অসহায় কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেওয়া শুরু করেছেন।

এর অংশ হিসেবে ২২ মে (মঙ্গলবার) উপজেলার চন্দ্রকোনা ইউনিয়নের হুজুরীকান্দা ও চরমধূয়া গ্রামের ৩ অসহায় কৃষকের মোট ৬০ শতক জমির ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছেন। ২৩ মে (বৃহস্পতিবার) আরো কয়েকজন কৃষকের ধান কেটে তাদের বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছেন। চলতি মৌসুমে এই কর্মসূচি চলবে যতদিন মাঠে কৃষকের দান রয়েছে; এমনটাই জানান তরুণ সমাজসেবক কনক।

কনক বলেন, আমি সেই ২০১৯ সালের করোনা অতিমারী সময় থেকে আজ পর্যন্ত প্রকাশ্যে জনগণের পাশে থেকে সাধ্যানুযায়ী সেবা করে আসছি। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধুর কন্যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধান মন্ত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা-এঁর নির্দেশে এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নেতৃবৃন্দের পরামর্শ মোতাবেক স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে অসহায় হতদরিদ্র কৃষকের ধান কেটে ও ভ‚ট্টা তুলে বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে আসছি। দেশ ও জাতির উন্নয়নে অসহায় দরিদ্র কৃষকের পাশে আমরা আছি এবং থাকবো। আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় ও সর্বসাধারনের ভালোবাসা পেতে প্রতিবন্ধী, অতিদরিদ্র ও অসহায় কৃষকের পাশে দাঁড়ানোর পাশাপাশি মানুষের মুখে হাসি দেখতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছি।

তার সেবামূলক কাজের উদাহরণ টানতে গিয়ে তিনি জানান, পার্শ্ববর্তী জেলা ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার বাসিন্দা চার সন্তানের জনক হাফেজ আব্দুল মতিন নামে এক দরিদ্র শরবত বিক্রেতা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপনের খবর পেয়ে তাকে একটি নতুন ভ্যানগাড়ী উপহার হিসেবে তুলেদেন। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে ঈদের খুশি ভাগাভাগি করে নিতে প্রতিবছর প্রতিটি ঈদে শতাধিক দরিদ্র অসহায়ের হাতে সাধ্যানুযায়ী ঈদ উপহার তুলে দিয়ে আসছেন। এছাড়া সমাজ সংস্কার ও সমাজ উন্নয়মূলক যেকোন কর্মকান্ডে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক হিসেবে সক্রিয় অংশ গ্রহন দেশব্যাপী আলোচনা সৃষ্টি করার মতো নজির রয়েছে।

তার প্রতিটি কাজে খুশি হয়েই নকলার জনগন তাকে ভালোবেসে ও তার প্রতি বিশ্বাস রেখে পবিত্র আমানত মহামূল্যবান ভোট দিয়ে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত করেছেন বলে কনকের বিশ্বাস। এতে তার দায়িত্ব অনেক গুণে বেড়ে গেছে বলে তিনি মনে করছেন। তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব যেন সঠিক ভাবে পালন করতে পারেন এরজন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন সদ্যবিজয়ী ভাইস চেয়ারম্যান আবু হামযা কনক।

কনকের বাবা মুকুল তালুকদার উপজেলাবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জানান, তার ছেলে দীর্ঘদিন ধরে পরিবারের সবকিছু দূরে ঠেলে জনসেবায় নিজেকে নিয়োজিত করে রেখেছে। এ কাজের উপহার হিসেবে নকলাবাসী আজ তাকে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী করেছেন। এই বিজয় কনকের নয়, এ বিজয় উপজেলাবাসীর; এমন মন্তব্য করেন তিনি।

উল্লেখ্য, নকলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে এ.কে.এম মাহবুবুল আলম সোহাগ, ভাইস চেয়ারম্যান পদে আবু হামযা কনক ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে লাকী আক্তার নির্বাচিত হয়েছেন। এই উপজেলায় ১ লাখ ৭৯ হাজার ৬০৬ জন ভোটারের মধ্যে গড়ে ৪৫.৯৬ ভাগ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুনঃ

এই জাতীয় আরো সংবাদ
©২০২০ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | সমকালীন বাংলা
Develop By : BDiTZone.com
themesba-lates1749691102
error: ভাই, খবর কপি না করে, নিজে লিখতে অভ্যাস করুন।