মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৩:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
সেনাবাহিনী প্রধানের দায়িত্ব নিলেন জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান : নকলায় আনন্দ মিছিল আ’লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নকলায় বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন হংকংয়ে বাংলাদেশি নারী কর্মীদের ঈদ পুনর্মিলনীতে বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণ ও প্রবাস পেনশন স্কীম বিষয়ক আলোচনা আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নকলায় ফ্রি চক্ষুসেবা ও ছানি রোগী বাছাই নকলার বানেশ্বরদী ইউপি কার্যালয় পরিদর্শন নকলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নিহত ১ নকলা প্রেসক্লাব পরিবারের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে সাংগঠনিক আলোচনা নকলা উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব গ্রহন এবার গানের লেখক নারায়নগঞ্জের আলী হাসানকে শেরপুর থেকে লিগ্যাল নোটিশ রাজিব হাসানের লেখা ‘কুসংস্কার’

২২ মাসের ব্যবধানে নকলা প্রেস ক্লাব ও আমাদের অর্জন

মো. মোশারফ হোসাইন:
  • প্রকাশের সময় | রবিবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৩১৯ বার পঠিত

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বদলে যাচ্ছে আমাদের চারপাশ। বদলে যাচ্ছে পৃথিবীর চিত্র। আমরা ক্রমশ ধাবিত হচ্ছি প্রযুক্তির নানা আবহে। প্রতিনিয়ত কত কিছু ঘটে যাচ্ছে। তথ্য-প্রযুক্তির এই যুগে সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে আমাদেরকেও এগুতে হচ্ছে। নকলা প্রেস ক্লাব মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ও প্রবাহমান সময়কে ধারণ করেই  সামনের দিকে এগিয়ে চলছে। যার ফলশ্রুতিতে নকলা প্রেস ক্লাব পরিণত হয়েছে সংবাদপত্রসেবীদের আধুনিকতম একটি প্রতিষ্ঠানে।

আর তাইতো আমরা নকলা প্রেস ক্লাবকে আমাদের নিজস্ব ভুবন মনেকরি। ক্লাবের নিজস্ব গঠনতন্ত্র, ব্যাংক হিসাব (সঞ্চয়ী), সুসজ্জিত অফিস কক্ষসহ সবার জন্য র্নিধারিত চেয়ার, প্রতিজনের নামে ড্রয়ারসহ টেবিল ও কেবিনেট, টেলিভিশন, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগসহ প্রতিটি আসবাবপত্র ও আঙিনা এবং আমাদের সকল কৃতকর্ম সবার মনকে ছুঁয়ে ছুঁয়ে যায়। প্রেস ক্লাবকে আমাদের সকলের কর্মকান্ডের মাধ্যমেই সবার প্রিয় করে তুলতে সক্ষম হয়েছি বলে সবাই মনে করতেই পারেন। আমাদের মাঝে যেন কোন প্রকার দ্বন্দ্ব কাটাতে বা যেকেউ যেন নকলা প্রেস ক্লাবের নাম ভাঙ্গিয়ে ঐতিহ্যবাহী প্রেস ক্লাবকে কলঙ্কিত করতে না পারে, সেদিক বিবেচনায় নকলার ইতিহাসে ক্লাবের নিজস্ব লোগো সম্বলিত অত্যাধুনিক পরিচয়পত্রে নাম, ঠিকানা, পদ-পদবী উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করে অত্যাধুনিক পরিচয়পত্র প্রদান করা হয়েছে। এতে করে নকলা প্রেস ক্লাবের নাম ভাঙ্গিয়ে চলা ভুয়া পরিচয় দাতা কিছুটা হলেও রোধ হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন।

এই প্রিয় ক্লাবটি সংশ্লিষ্টদের পেশাগত উত্তরণের মাধ্যমে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ প্রচার-প্রসারে যেমন ভূমিকা রাখছে, তেমনি বিনোদন, ক্রীড়া, বাৎসরিক ভ্রমন ইত্যাদির আয়োজন করে সংবাদকর্মীদের মানসিক উৎকর্ষ সাধন ও তাদের মনোজগতকে আনন্দময় রাখার ক্ষেত্রেও বিভিন্ন কর্মসূচি অব্যাহত রাখছে। আগামীতে এ ধারাবাহিক কর্মসূচি আরো জোরদার করতে ক্লাবের সবাই সক্ষম হবেন বলে আমরা আশা করছি।

বর্তমানের ‘নকলা প্রেস ক্লাব’ সংবাদপ্রেমীদের প্রিয় সংগঠনে রূপান্তরিত হওয়ার একদমই শেষ প্রান্তে, এটা সবাই একবাক্যে স্বীকার করার কথা। এই প্রতিষ্ঠানের সাথে সংবাদপত্র সংশ্লিষ্ঠ সকলের প্রাণের সংযোগ রয়েছে; এটা কারো অস্বীকার করার কোন প্রকার সুযোগ আছে বলে আমরা মনে করিনা।

দীর্ঘদিন পরে হলেও সকলের একান্ত প্রচেষ্ঠায় এক জায়গায় বসে একে-অপরের সাথে ভাব বিনিময় করার তথা হৃদতা সৃষ্টি হওয়ার সুন্দর পরিবেশ তৈরি হয়েছে। যার রেশ ছড়িয়ে পড়েছে পুরো জেলা-উপজেলায়। একে অপরের সাথে সম্পর্কের বন্ধন ক্রমশ সুদৃঢ় হচ্ছে। বৃদ্ধি পাচ্ছে এক অপরের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা ও আন্তরিকতা। ভবিষ্যতে এর সুদৃঢ়তা ও পরিধি আরো বাড়বে বলে মনে করা খুবই স্বাভাবিক। ক্লাবের সকলের সুবিন্যস্থ ও সুবিস্তৃত কর্মকান্ডের কারণে নকলা প্রেস ক্লাব এখন শুধু নকলার সংবাদকর্মীদের প্রতিষ্ঠান নয়, পরিণত হয়েছে সর্বসাধারনের বিশ্বস্থ ও প্রিয় এক প্রতিষ্ঠানে।

উপজেলার সংবাদসেবীদের গর্বের জায়গা ‘নকলা প্রেস ক্লাব’ আস্তে আস্তে বর্তমান অবস্থানে এসে পৌঁছেছে। এরজন্য আমাদের সকলকে ধৈর্য্যরে সহিত অনেক মেধা, শ্রম, সময়, কষ্ট ও ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। এই প্রেস ক্লাবটি ১৯৮৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে ২০২১ সাল পর্যন্ত ৩৮ বছরের সুদীর্ঘ পথ পারি দিলেও অজ্ঞাত কারনে এর আগে কোন সুবিন্যস্ত অফিস ছিলোনা। ছিলো না প্রেস ক্লাব ও সাংবাদকর্মীদের উন্নয়নের কোন ছোঁয়া।

আগের কমিটি গুলোর নেতৃবৃন্দরা তাদের সর্বোচ্চ ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও পারিপার্শ্বিক পরিবেশগত কারনেই হয়তোবা এর আগে নকলা প্রেস ক্লাবের দৃশ্যমান কোন পরিবর্তন কেউ দেখেনি। আর তাইতো সংগঠন পরিচালনার জন্য যুগোপযোগী নিজস্ব গঠনতন্ত্র, নিয়মিত মিটিং ও রেজিউলেশন, ক্লাবের উন্নয়নে আবাবপত্র ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় বিষয়াধিতো ছিলো কল্পনার মাত্র। তাইতো মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বুকে ধারন করা উপজেলায় কর্মরত বস্তুনিষ্ট লেখক ও সংবাদকর্মীদের একান্ত প্রচেষ্ঠায় এবং দেশ ও জাতির উন্নয়নে দৃঢ় প্রত্যয়ী তরুণ সংবাদকর্মীসহ সকলের ইচ্ছায় নকলার সংবাদপত্র জগতের ইতিহাসে ঝমকালো এক আয়োজনের মাধ্যদিয়ে গোপন ভোটের মাধ্যমে একটি অবাদ ও সুষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। গঠনতন্ত্র মোতাবেক নির্বাচনের ১০ দিনের মধ্যেই নির্বাচন কমিশনারের নিকট থেকে দায়িত্ব বুঝেনেন নির্বাচিত নেতৃবৃন্দ। এর কয়েক দিনের মধ্যেই পরিচিতি সভা ও অভিষেক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যা নকলার সংবাদজগতের ইতিহাসে আরো একটি স্মরণীয় দিন হিসেবে স্বর্ণাক্ষরে লিখা থাকবে।

এর পর থেকে আমরা অনেকের চোখের কাটা হয়েও ধৈর্যের সহিত সামনের দিকে এগিয়ে চলা শুরু করি এবং চলছি। আর ধৈর্য্যরে একমাত্র কারন চলমান মেয়াদে আমাদের সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার শ্লোগান ছিলো ‘আমরা সেরা হতে নয়, পরিবর্তনে বিশ্বাসী’। এই শ্লোগানকে মনেপ্রাণে ধারন করে সকলের সার্বিক পরামর্শে এবং সকল সংবাদকর্মীদের আন্তরিকতায় আমরা সেরা হতে না পারলেও, সত্যিই দৃশ্যমান পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়েছি। যা সুষ্পষ্ট ও সকলের সামনে দৃশ্যমান এবং সর্বজন স্বীকৃত।

সকল কাঁটা ধন্য করে ফুল ফোটানোর মহান প্রত্যয়ে আমরা সামনের দিকে এগিয়ে চলছি। এ দীর্ঘ পথ অতিক্রম করতে হয়তোবা অনেকের দৃষ্টিতে সামান্য ত্রুটি বিচ্যুতি ধরা পরতে পারে। তবে আমরা মনে করি কাজ করলে ত্রুটি হবেই, যে কাজ করেনা তার কোন ত্রুটি হওয়ার সুযোগ নেই। তাদের কাজ বসে বসে শুধু গাল গল্প করা, আর অন্যের সমালোচনা করার সামিল আরকি। তবে এটা সঠিক ত্রুটির তুলনায় সফলতা ও গুণের বিবেচনায় আমাদের উন্নয়ন মূলক পরিবর্তনের পরিমাণ পূর্বের দিন গুলোর চেয়ে নিঃসন্দেহে শত গুণ বেশি।

নকলা প্রেস ক্লাবের এমন ইতিহাস গড়তে জেলা প্রেস ক্লাবসহ জেলা ও উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তর, পৌরসভা, সিনিয়র সাংবাদিকগন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন স্তরের জনপ্রতিনিধিগনসহ সর্বসাধারনের ভূমিকা ছিলো অতুলনীয়। তাদের পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতাকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করার পাশাপাশি তাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

আমাদের উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের মধ্যে সর্বজন প্রশংসিত হলো- যেকোন অনুষ্ঠানে সবাই হুমড়ি খেয়ে ভিড় না করে পূর্ব থেকে মনোনিত ক্লাবের ২/৪ জনসাংবাদিক উপস্থিত হলেই আমরা সবাই নিজ নিজ সংবাদ মাধ্যমে খবরটা প্রচার ও প্রকাশ করতে পারি। যদিও আমাদের কম সংখ্যক উপস্থিতির বিষয়ে প্রথম প্রথম অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতো যে, প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকদের উপস্থিতি কম কেন? কিন্তু পরে তারা যখন দেখেন যে, নকলা প্রেস ক্লাবের সবাই অনুষ্ঠানে না থাকলেও, সবাই নিজ নিজ সংবাদ মাধ্যমে নিয়মিত খবর ঠিকই প্রকাশ প্রচার করেন। এর পরে যেকোন অনুষ্ঠানে আমাদের সকলের উপস্থিতি নিয়ে আর কোন প্রশ্ন উঠেনি এবং উঠার কথা নয়। আমাদের মধ্যে হৃদতা সৃষ্টির মতো এমন নজির অতীতের দিন গুলোতে হয়তোবা চর্চা হতো না। বর্তমানেও অনেক জায়গায় একে অপরকে খবরের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে সহায়তা করার মনোভাবের যথেষ্ট অভাব লক্ষণীয়।

আমাদের কোন কাজেই যে ত্রুটি নেই বা ছিলো না, তা হয়তোবা বড় গলায় বলতে পারছি না; তবে দেশ ও জাতির উন্নয়নে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বুকে ধারন করে যেকোন কাজে আমাদের নিষ্ঠা, সততা ও আন্তকিতার কোন প্রকার যে অভাব ছিলোনা বা নেই তা কিন্তু আমরা দৃঢ়চিত্তে বলতে পারি।

আমরা নতুন কমিটি গঠনের পরেই সাংবাদিকতায় পেশাগত উন্নয়নে তিন (০৩) দিনের বুনিয়াদী প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড এবং বিভিন্ন কর্মসূচি যেমন পালন করে আসছি; তেমনি সাংবাদকর্মীদের সম্মানজনক স্থানে রাখতে চালিয়েছি নানান প্রয়াস। সাংবাদকর্মীদের পেশাগত মর্যাদা বৃদ্ধি ও দক্ষতা বৃদ্ধি করাই আমাদের অন্যতম লক্ষ্য। পেশাগত মর্যাদা বৃদ্ধি ও দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিনোদন, ক্রীড়া, বাৎসরিক ভ্রমন ইত্যাদির আয়োজন করে সংবাদকর্মীদের মানসিক উৎকর্ষ সাধন ও মনোজগতকে আনন্দময় রাখার পাশাপাশি অনেকের পরামর্শে প্রেস ক্লাব অফিস কক্ষে একটি সমৃদ্ধ ‘বঙ্গবন্ধু বুক কর্ণার’ (বাঙালি জাতির পিতার নামে) স্থাপনের প্রচেষ্ঠায় আমরা শতভাগ সফল হয়েছি। এই বুক কর্ণারের মাধ্যমে সংবাদ বা প্রতিবেদন লেখার কৌশলসহ বিভিন্ন আইন সম্পর্কেও জানার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষিত বেকার তরুণ-তরুণীদের চাকরি প্রাপ্তিতে সহায়ক বই থাকায় তারা পাচ্ছেন সহজ ইন্টারভিউ সহায়তা। পড়তে পারছেন দেশী বিদেশী লেখকের বই। জানতে পারছেন বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস। উদ্বুদ্ধ হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়।

প্রতিটি ক্ষেত্রে আমাদের সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠা ও অনেকের সার্বিক সহযোগিতা ছিলো বলেই এমনটা সম্ভব হয়েছে বলে আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করছি। ভবিষ্যতে উন্নয়নের এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে বলে আমরা আশা করছি। নকলা প্রেস ক্লাবের নামে নকলা শহরের প্রাণ কেন্দ্রে দেড় শতাংশ জমি সাবকওলা মূলে রয়েছে। এই জমি চিহৃত করে তা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সহযোগিতায় উদ্ধার করা এবং সেখানে নিজস্ব ভবন নির্মাণ করার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে আমাদের একান্ত প্রচেষ্টা কাম্য হওয়া উচিত বলে আমরা মনে করছি।

নকলা প্রেস ক্লাবকে আরো গতিশীল করতে সদস্যপদ নবায়ন ও নতুন সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম চলছে। এই কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে সফল হলে প্রেস ক্লাবের কার্যক্রম আরো একধাপ এগিয়ে যাবে বলে মনে করা যেতে পারে। আসুন সবাই এক ছাদের নিচে অবস্থান নেই। তাতে আপনার-আমার সবার মঙ্গল। তাতে অন্যরা আমাদের নিয়ে তামাশা করার সুযোগ পাবেন না। সাংবাদিক ও সাংবাদিকতা কোন তামাশার ব্যক্তি বা পেশা নয়। সাংবাদিকগন জাতির দর্পণ হিসেবে সর্বজন পরিচিত ও যেকোন রাষ্ট্রের চতুর্থ শক্তি। এটা মাথায় রেখে আমাদের পথা চলা উচিত। এর ফলে একদিকে আমরা হবো অধিক শক্তিশালী, অন্যদিকে দেশ-জাতি আমাদের দ্বারা কিছুটা হলেও উপকৃত হবে।

নকলা প্রেস ক্লাব আমাদের সকলের অহংকার; অতএব এর মর্যাদা সমুন্নত রাখার দায়িত্বটাও আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে ও নিষ্ঠার সহিত পালন করতে হবে বলেই আমরা নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করার চেষ্টা করেছি। নকলা প্রেস ক্লাবের মর্যাদা বৃদ্ধি মানেই আপনি-আমি মর্যাদাশীল কোন প্রতিষ্ঠানের একজন মর্যাদাবান দায়িত্বশীল ব্যক্তি। তাই এর মর্যাদা সমুন্নত রাখাই হোক আমাদের সকলের অঙ্গীকার। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নিজে ভালো থেকে, অন্যকে ভালো রাখার প্রত্যয়ে সবাই সুস্থ্যতার সহিত সুন্দর সুখী জীবন যাপন করুন, এই প্রত্যাশা করছি।

—মো. মোশারফ হোসাইন
(সভাপতি)
নকলা প্রেস ক্লাব
শেরপুর।

নিউজটি শেয়ার করুনঃ

এই জাতীয় আরো সংবাদ
©২০২০ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | সমকালীন বাংলা
Develop By : BDiTZone.com
themesba-lates1749691102
error: ভাই, খবর কপি না করে, নিজে লিখতে অভ্যাস করুন।