শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৯:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
নকলায় বৈষম্যমূলক কোটা সংস্কার দাবিতে ও শিক্ষার্থীর ওপর বর্বর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন নকলায় উন্নয়ন সহায়তা কর্মসূচির টিউবওয়েল বিতরণ মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী শ্লোগানের প্রতিবাদে নকলায় মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন এবার শেরপুরকে ঘিরে তৈরি হচ্ছে ইত্যাদি অনুষ্ঠান : সকল কাজ প্রায় শেষ বিভাগীয় কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় নকলায় “মাদককে না বলুন” কর্মসূচি বাস্তবায়নে শপথ গ্রহণ নকলায় জঙ্গিবাদ ও মাদকাসক্তি প্রতিরোধে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নকলায় শিশু ও নারী নির্যাতন বিরোধী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নকলায় যুবদের হুইসেলব্লোয়ার হিসেবে অন্তর্ভূক্তিকরণ সভা নকলার ইউএনও শুদ্ধাচার পুরস্কার পাওয়ায় যুবফোরাম কর্তৃক সম্মাননা স্মারক প্রদান

পিঠা বিক্রির আয়ে চলে চন্দ্রকোনার শামসুল হকের মতো অনেকের সংসার

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • প্রকাশের সময় | মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২
  • ২৩১ বার পঠিত
Exif_JPEG_420

বাংলাদেশের প্রতিটি এলাকায় শীতের আমেজ শুরু হয়েছে। শীতের সকালে বা শেষ বিকেল থেকে শুরু করে রাত অব্ধি চুলার পাশে বসে মায়ের হাতে বানানো বিভিন্ন পিঠা খাওয়া কার না ভালো লাগে? এমন মধুর স্মৃতি গ্রামের প্রতিটি মানুষের জীবনেই আছে।

শীতের আমেজ শুরু হওয়া থেকেই গ্রাম বাংলার প্রায় প্রতিটি রস্তার মোড়, হাট-বাজারের প্রতিটি অলিগলির মাথায় বসে ভাঁপা ও চিতই পিঠাসহ বিভিন্ন পিঠা বিক্রির দোকান।

শীতের বিভিন্ন পিঠার মধ্যে ভাঁপা ও চিতই পিঠা একটি ঐতিহ্যবাহী খাবার। শীত কালের অতি পরিচিত মুখরোচক এসব পিঠা বানানোর দৃশ্য গ্রামের ঘরে বাড়িতে আগের মতো আর হয়ে উঠেনা। তাইতো বাইরের দোকানের পিঠাই এখন একমাত্র ভরসা। এই সুযোগকে কাজে লাগাতে শীতের শুরু থেকেই শেরপুরের নকলা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার রাস্তার মোড়ে-মোড়ে খোলা আকাশের নিচে বা ভ্যান গাড়ির উপরে পিঠার দোকান বসতে শুরু করেছে।

সকালের কুয়াশা কিংবা সন্ধ্যার হিমেল বাতাসে ভাঁপা পিঠার গরম আর সুগন্ধি ধোঁয়ায় মন আনচান করে ওঠে। সরষে বা ধনে পাতা বাটা অথবা শুঁটকির ভর্তা মাখিয়ে চিতই পিঠা মুখে দিলে ঝালের দাপটে কান গরম হয়ে যায়, শীত যেন দৌঁড়ে পালায়।

পিঠা প্রেমি মানুষ পিঠার স্বাদ গ্রহণ করতে ফুটপাতের এসব পিঠার দোকানে প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যা ভিড় করেন। আবার গ্রামের অনেকে পিঠার দোকানের চুলার পাশে বসে গরম পিঠা খাওয়াকে রুটিনে পরিণত করেছেন। কেউ কেউ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের জন্য পিঠা কিনে বাসা-বাড়িতে নিয়ে সবাই একসাথে বসে আনন্দ করে খান।

তবে নিম্ন আয়ের শ্রমজীবী ও ছোট পরিবহণ শ্রমিকসহ অভিজাত শ্রেণির লোকজনের কাছে অত্যন্ত প্রিয় খাবার শীতের বিভিন্ন পিঠা। এই শীতে ফুটপাতের পিঠার দোকানিরা যেন ভদ্রঘরের অভিজাত গৃহবধূদসহ সব পেশাশ্রেণির পরিবারের নারীদের পিঠা তৈরির কষ্ট থেকে মুক্তি দিয়েছে।

পিঠা বিক্রির দোকানগুলো সাধারণত প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত এবং বিকেল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বসে। এ সমসস্ত ভাসমান পিঠার দোকানিদের মধ্যে অধিকাংশরাই নিম্ন আয়ের বা দরিদ্র পরিবারের। সংসারে স্বচ্ছছলতা ফেরাতে বা ভাত কাপড় যোগাতে তারা রাস্তার পাশে পিঠা তৈরি করে বিক্রি করেন।

উপজেলার চন্দ্রকোনা ইউনিয়ন বাজারের পিঠা বিক্রেতা শামসুল হক এমন একজন পিঠা বিক্রেতা। তিনি জানান, অন্তত ২০ বছর ধরে তিনি পিঠা বিক্রি করেন। পিঠা বিক্রির আয়েই ঘুর তার সংসারের চাকা।

শামসুল হক জানান, চালের গুঁড়া দিয়ে জলীয় বাষ্পের আঁচে তৈরী করি ভাঁপা পিঠা। আর মিষ্টি করার জন্য দেয়া হয় গুড় বা চিনি। স্বাদ বৃদ্ধির জন্য নারকেলের কিছু শাঁস ছিটিয়ে দেওয়া হয়। চিতই পিঠা খেতে সুস্বাদু করতে আলাদা বাটিতে সরিষার ভর্তা, শুটকি ভর্তা, ধনেপাতা ভর্তা দেওয়া হয়। তিনি প্রতিদিন ২০০ থেকে ৩০০ টি পিঠা বিক্রি করেন। এই আয়েই চলে তার সংসারের সব খরচ। শামসুল হক শামসুল হক বলেন, আমার মতো উপজেলার শতাধিক দরিদ্র পরিবার পিঠা বিক্রি করেই তাদের সংসারের যাতীয় খরচসহ ছেলে-মেয়ের পড়ালেখার খরচ বহন করেন।

সন্ধ্যায় পিঠা খেতে আসা স্থানীয় শাকিলের সাথে কথা হলে তিনি জানান, তিনি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ভাসমান এসকল দোকানে বিভিন্ন পিঠা খেতে আসেন। হাতের নাগালে ও অপেক্ষাকৃত কম দামে পিঠা পেয়ে তার মতো অনেকে খুশি। শাকিল বলেন, আমি নিজে পিঠা খেয়ে পরিবারের অন্যদের জন্য নিয়ে যাই।

বন্ধুদের সঙ্গে চন্দ্রকোনা বাজারের চার রাস্তামোড়ে পিঠা খেতে আসা তাসনিম মিডিয়ার পরিচালক তাহের উদ্দীন গাজি বলেন, শীতের প্রায় প্রতি সন্ধ্যায় সরিষার ভর্তা বা শুটকি ভর্তা বা ধনেপাতা ভর্তা দিয়ে চিতই পিঠা খাওয়া কিযে স্বাদ তা বলে শেষ করার মতো নয়। মুখরোচক বিভিন্ন ভর্তা দিয়ে চিতই পিঠা খাওয়ার কথা মনে হলেই সবার জিভে জল আসার কথা। আর এমন স্বাদের কারণেই তারা শীত কালের প্রায় প্রতিদিন পিঠা খেতে বাজারে আসেন।

মৌসুমী পিঠা বিক্রি করার মাধ্যমে নিজেদের বেকারত্ব দুরীকরণসহ অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারেন বলে অনেকে মনে করেন। তারা জানান, পিঠা বিক্রি করে যেকেউ স্বাবলম্বী হওয়ার পাশাপাশি দেশীয় খাদ্য সংস্কৃতিকে টিকিয়ে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করা সম্ভব।

নিউজটি শেয়ার করুনঃ

এই জাতীয় আরো সংবাদ
©২০২০ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | সমকালীন বাংলা
Develop By : BDiTZone.com
themesba-lates1749691102
error: ভাই, খবর কপি না করে, নিজে লিখতে অভ্যাস করুন।