মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
সেনাবাহিনী প্রধানের দায়িত্ব নিলেন জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান : নকলায় আনন্দ মিছিল আ’লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নকলায় বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন হংকংয়ে বাংলাদেশি নারী কর্মীদের ঈদ পুনর্মিলনীতে বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণ ও প্রবাস পেনশন স্কীম বিষয়ক আলোচনা আ’লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নকলায় ফ্রি চক্ষুসেবা ও ছানি রোগী বাছাই নকলার বানেশ্বরদী ইউপি কার্যালয় পরিদর্শন নকলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নিহত ১ নকলা প্রেসক্লাব পরিবারের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে সাংগঠনিক আলোচনা নকলা উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব গ্রহন এবার গানের লেখক নারায়নগঞ্জের আলী হাসানকে শেরপুর থেকে লিগ্যাল নোটিশ রাজিব হাসানের লেখা ‘কুসংস্কার’

নকলায় ইউপি চেয়ারম্যান ভূট্টোর তৎপরতায় বাল্যবিবাহ বন্ধ

নকলা (শেরপুর) প্রতিনিধি:
  • প্রকাশের সময় | শুক্রবার, ৩ জুন, ২০২২
  • ২৮৭ বার পঠিত

শেরেপুরের নকলা উপজেলার উরফা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ নূরে আলম তালুকদার ভূট্টোর তৎপরতায় বাল্যবিবাহ থেকে রক্ষা পেলো মাদ্রাসা পড়ুয়া অপ্রাপ্ত বয়স্ক এক শিক্ষার্থী। ১৩ বছর বয়সী ওই শিক্ষার্থী বারমাইসা গ্রামের বাঘেরকান্দা এলাকার লাল মিয়ার মেয়ে ও উরফা গোরস্থান দাখিল মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

জানা গেছে, মেয়ের বাবা-মা দীর্ঘ্যদিন ধরে রাজধানী ঢাকায় থাকায়, মেয়ের চাচা মনো মিয়া শুক্রবার (৩ জুন) তার ভাতিজির বিবাহের আয়োজন করেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উরফা ইউপির চেয়ারম্যান নূরে আলম তালুকদার ভূট্টো সরেজমিনে গিয়ে এ বিবাহ বন্ধ করেদেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পার্শ্ববর্তী নালিতাবাড়ি উপজেলার মরিচপুরান ইউনিয়নের ফকিরপাড়া এলাকার শরিফুল ইসলামের ছেলে পোশাক শ্রমিক হাসান মিয়ার সাথে নকলা উপজেলার উরফা গোরস্থান দাখিল মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর বিবাহের আয়োজন করা হয়। ইউপি চেয়ারম্যান বিভিন্ন মাধ্যমে এই সংবাদ পেয়ে বাল্যবিবাহের আয়োজনের সত্যতা নিশ্চিত হওয়ার পরে গ্রাম পুলিশদের সাথে নিয়ে বিয়ে বাড়িতে হাজির হন। চেয়ারম্যানের উপস্থিতি টের পেয়ে নিকাহ রেজিষ্ট্রার (কাজি) ও বর পক্ষের লোকজন কৌশলে বিয়ে বাড়ি থেকে শটকে পড়েন। বিয়ের আয়োজক (মেয়ের চাচা) মনো মিয়াও ভয়ে কৌশলে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে মনো মিয়াকে বুঝিয়ে হাজির করে, তার উপস্থিতিতে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের সহযোগিতায় এ বিয়ে বন্ধ করেদেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নূরে আলম তালুকদার ভূট্টো।

এলাকার কোন ছেলে-মেয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার আগে যেন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে না পারে, সে দিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে বিবাহ সংশ্লিষ্ট পরিবারের সদস্য ও উপস্থিতিদের মৌখিক অঙ্গীকার করান নূরে আলম তালুকদার ভূট্টো। ভূট্টো বলেন, ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসের ৩০ তারিখে নকলাকে জেলার প্রথম বাল্যবিবাহ মুক্ত উপজেলা হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। অতএব, উরফা ইউনিয়নে বাল্যবিবাহ কোন ভাবেই মেনে নেওয়া হবেনা। এরপরেও উরফা ইউনিয়নে বাল্যবিবাহের কোন ঘটনা ঘটলে কোন প্রকার আপোষ নেই। প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট পরিবারের অভিভাবক, বর, আয়োজক ও নিকাহ রেজিষ্ট্রার (কাজী)-দেরকে আইনের আওতায় আনা হবে বলে তিনি হুশিয়ার করেন। বাল্যবিবাহ নিরোধ ও বন্ধে উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বাল্যবিবাহ নিরোধ কমিটির সংশ্লিষ্টরা সদা তৎপর রয়েছেন বলেও জানান উরফা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ নূরে আলম তালুকদার ভূট্টো।

নিউজটি শেয়ার করুনঃ

এই জাতীয় আরো সংবাদ
©২০২০ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | সমকালীন বাংলা
Develop By : BDiTZone.com
themesba-lates1749691102
error: ভাই, খবর কপি না করে, নিজে লিখতে অভ্যাস করুন।