বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ১১:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
শেরপুরে ডিএসএ’র দাবা প্রতিযোগিতা উদ্বোধন ছাত্রলীগ থেকে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হলেন তরুণ সমাজসেবক কনক ঐতিহাসিক ভোট পেয়ে নকলা উপজেলা পরিষদের নতুন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হলেন লাকী নকলা উপজেলা পরিষদের নতুন চেয়ারম্যান মাহবুবুল আলম সোহাগ নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদে নির্বাচিত হলেন যাঁরা মেঘলা দিনে নকলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে সোহাগ, ভাইস চেয়ারম্যান পদে কনক ও লাকী নির্বাচিত নকলার ৭৯ কেন্দ্রে নির্বাচনি সরঞ্জাম পৌঁছেছে ব্যালট পেপার যাবে সকালে নকলায় নির্বাচনি প্রচারনা বন্ধ, নিয়ন্ত্রিত যানবাহন ২১ মে সাধারণ ছুটি ঘোষণা নকলাকে স্মার্ট উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে একগুচ্ছ পরিকল্পনা ঘোষণা দিলেন চেয়ারম্যান প্রার্থী সোহাগ

আপনার সামান্য সহায়তায় বাঁচতে পারে নকলার শিশু ইয়ামিন

এম.এম হোসাইন, নিজস্ব প্রতিনিধি:
  • প্রকাশের সময় | বুধবার, ৩ মার্চ, ২০২১
  • ৩১৯ বার পঠিত

৩ বছর বয়সি শিশু ইয়ামিন, সে ব্রেইন ইনফেকশনে আক্রান্ত। সে শেরপুর জেলার নকলা উপজেলার বানেশ্বর্দী উত্তর পাড়া গ্রামের মোখলেছুর রহমান ও নুরজাহান বেগম দম্পত্তির ছোট সন্তান। ইয়ামিনকে বাঁচাতে তার বাবা-মা দেশের ধনাঢ্য ও দানশীল লোকদের কাছে সহায়তা কামনা করেছেন। ছেলের চিকিৎসার ব্যয় ভার বহন করে আজ সর্বশান্ত; দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা।

ইয়ামিন আড়াই বছর বয়সে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হলে প্রথমে খিঁচুনি দেখা দেয়। পরে আস্তে আস্তে হাত, পা অবস হতে থাকে। পর্যায়ক্রমে তার সমস্ত শরীর অবস হয়ে যায়। এখন সে মাথা তুলে বসতে পারেনা, হাটাতো দূরের কথা। এমতাবস্থায় দরিদ্র মোখলেছুর রহমান তার শিশু ছেলেকে নিয়ে প্রথমে শেরপুর সদর হাসপাতালে, পরবর্তীতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দীর্ঘ দিন চিকিৎসা করান।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিউরোলজি বিভাগের চিকিৎসকরা ইয়ামিনের সিটি স্ক্যানসহ প্রয়োজনীয় বিভিন্ন পরীক্ষা করাতে বলেন। পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী চিকিৎসকরা ইয়ামিনের ব্রেইনে সমস্যার কথা জানান এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা বা বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানোর পরামর্শ দেন।

শিশু সন্তান ইয়ামিনকে দীর্ঘদিন ব্যয়বহুল চিকিৎসা করিয়ে মোখলেছুর রহমান আজ পথে বসার উপক্রম। এখন তাকে বাঁচাতে আরও ১৫ লাখ থেকে ২০ লাখ টাকার প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন তার চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা।

ভ্যান চালক দরিদ্র মোখলেছুর রহমানের এতগুলো টাকা যোগাড় করার মতো অবস্থা নেই। তার বসতভিটা ছাড়া আর কোনো জমিও নেই, যে তা বিক্রি করে সন্তানের চিকিৎসা খরচ বহন করবেন। তাই ইয়ামিনের বাবা-মা দেশের ধনাঢ্য ও দানশীল ব্যক্তিদের কাছে সহায়তা কামনা করেছেন। শিশুটিকে বাঁচাতে সহযোগিতার জন্য ইয়ামিনের বাবা মোখলেছুর রহমানের বিকাশ নম্বর ০১৮৮৬ ৬৪ ৪৪ ৮৪ (পার্সোনাল)।

নিউজটি শেয়ার করুনঃ

এই জাতীয় আরো সংবাদ
©২০২০ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | সমকালীন বাংলা
Develop By : BDiTZone.com
themesba-lates1749691102
error: ভাই, খবর কপি না করে, নিজে লিখতে অভ্যাস করুন।